সাতকানিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

4

সাতকানিয়া প্রতিনিধি

সাতকানিয়ায় মোবাইল ফোন ও জামা-কাপড় কিনে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে আবাসিক হোটেলে নিয়ে অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার (১৫ মে) সকালে সাতকানিয়া সদর ইউনিয়নের শাহ মজিদিয়া বাজার থেকে তুলে নিয়ে বান্দরবান সদরের একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর বড় ভাই বাদি হয়ে সদর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড ছোট বারদোনা পেরাইতা বর পাড়ার শামসুল ইসলামের ছেলে মো. হারুন (৪৫) কে আসামি করে গত বৃহস্পতিবার রাতে সাতকানিয়া থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়।
মামলা এজাহার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সোনাকানিয়া ইউনিয়নের ৮নম্বর ওয়ার্ডের হালদার কূল এলাকার এক কৃষকের মেয়ে স্থানীয় স্কুলের অষ্টম শ্রেণিতে পড়ালেখা করে। স্কুলে আসা যাওয়ার পথে শাহ মজিদিয়া বাজারে নেজাম চেয়ারম্যানের মার্কেটে বেড বেডিং ব্যবসায়ী অভিযুক্ত হারুন ছাত্রীটিকে প্রায় সময় উত্ত্যক্ত করত। এক সময় তাদের মধ্যে পরিচয় হয়। পরিচয়ের সুযোগে কৌশলে ছাত্রীটির মায়ের মোবাইল ফোন নম্বর সংগ্রহ করে হারুন। প্রায় সময় ফোন করে ছাত্রীকে মোবাইল ফোনসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র কিনে দেওয়ার প্রলোভন দেখানো হত। এরই ধারাবাহিকতায় গত বুধবার (১৫মে) সকালে অভিযুক্ত হারুন ছাত্রীটিকে শাহ মজিদিয়া বাজারে আসতে বলে। ছাত্রীটি বাজারে আসলে হারুন তাকে অটোরিকশা করে প্রথমে উপজেলার কেরানিহাট বাজার পরে বান্দরবান সদরের ফোর স্টার নামক আবাসিক হোটেল নিয়ে ছাত্রীটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে। একইদিন বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ঘরে ফিরে ছাত্রী তার সাথে ঘটে যাওয়া পুরো ঘটনা তার মা’কে খুলে বলে। এ ব্যাপারে মামলার বাদি ও ছাত্রীর বড় ভাই বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে হারুনকে একমাত্র আসামি করে থানায় একটি মামলা করেছি। তবে পুলিশ এখনও পর্যন্ত ধর্ষককে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। আমি ধর্ষককে গ্রেপ্তারপূর্বক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। সাতকানিয়া থানার উপ-পরিদর্শক মো, মোস্তাক আহমদ শাব্বীর উক্ত ঘটনায় মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আসামিকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।