মেয়রের সঙ্গে মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

18

বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে সংস্কৃতি আদান প্রদান হলে দুই দেশের জনগণ উপকৃত হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত মালয়েশিয়ার ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার আমির ফরিদ আবু হাসান। গতকাল বুধবার নগরের টাইগারপাসে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে তিনি এ কথা জানান। এ সময় তারা দুই দেশের স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পর্যটন ও সংস্কৃতিসহ বিবিধ বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।
মেয়র বলেন, সাগর, নদী, পাহাড়-পর্বত বেষ্টিত নৈসর্গিক শহর চট্টগ্রাম। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি এ শহরটি এখন সবুজে আচ্ছাদিত ও পরিচ্ছন্ন নগরী। এই শহরে রয়েছে সামুদ্রিক বন্দর যা দেশের আমদানি রপ্তানির সিংহভাগ এ বন্দরের মাধ্যমেই হয়ে থাকে। তাই এই শহরটি সারা বিশ্বের কাছে পোর্ট সিটি চট্টগ্রাম হিসেবে সর্বাধিক পরিচিত। তিনি বলেন, মালয়েশিয়া বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে মালয়েশিয়া অগ্রযাত্রার বিশ্বস্ত সঙ্গী।

মেয়র রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে নগরের পর্যটন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সংস্কৃতি সেক্টরের সার্বিক উন্নয়নে মালয়েশিয়ার উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। খবর বাংলানিউজের
রাষ্ট্রদূত আমির ফরিদ আবু হাসান নগর আয়তন ও সিটি কর্পোরেশনের অবকাঠামো সম্পর্কে জানতে চাইলে মেয়র বলেন, ৬০ বর্গমাইল এলাকা নিয়ে সিটি কর্পোরেশন। এতে ৪১টি ওয়ার্ড রয়েছে। নগরবাসীর সংখ্যা ৭০ লাখ। এই বিপুল সংখ্যক নগবাসীকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, আলোকায়ন, অবকাঠামো সেবা ছাড়াও শিক্ষা স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন।
এসময় চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, মেয়রের একান্ত সচিব আবুল হাশেম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ একেএম রেজাউল করিম, পিএইচপি গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মো. মহসিন, নাজমুল হাসান উপস্থিত ছিলেন। মেয়র রাষ্ট্রদূতকে সিটি কর্পোরেশনের ক্রেস্ট উপহার দেন।