বয়ঃসন্ধিকাল কোনো অভিশপ্ত সময় নয়

106

সরকারের যুগ্ম সচিব ও পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের পরিচালক মো. নাজমুছ সাদাত সেলিম বলেছেন, ১০ থেকে ১৯ বছর বয়সীদের বলা হয় কিশোর বা কিশোরী। এই সময়টিকে বয়ঃসন্ধিকালও বলা হয়। নিজের জীবনের সঠিক পথ বেছে নিতে, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনায় নেতৃত্ব দিতে প্রস্তুতি নেয়ার সময় এটাই। আমাদের সমাজের অনেকেই মনে করেন, বয়ঃসন্ধিকাল একটি অভিশপ্ত সময়। তথ্যটি সত্য নয়। নিজেকে আর লুকিয়ে রাখা নয়, প্রকাশ করার সব ধরণের প্রচেষ্টা চালাতে হবে। নিজের অনুভূতিগুলোকে আড়াল না করে প্রকাশ করার মাধ্যমে এই সময়টিকে উপভোগ করা যায়। মা-বাবাকে যেমন সন্তানের প্রতি নজর রাখতে হবে, ঠিক তেমনি যারা বয়সটা পার করছে, তারা বয়ঃসন্ধিকালীন যে পরিচর্চাগুলো আছে তা মেনে চলতে হবে।
গত সোমবার নগরীর পতেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়োজিত কিশোর-কিশোরী সমাবেশে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। পতেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়, মমতা, মোহাম্মাদুন নবী উচ্চ বিদ্যালয়, দক্ষিণ পতেঙ্গা সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয়, ইস্টার্ণ রিফাইনারী উচ্চ বিদ্যালয়ের শতাধিক কিশোর-কিশোরী এই সমাবেশে অংশ নেন। বেলা ১১টায় বেলুন উড়িয়ে সমাবেশ উদ্বোধন করা হয়। সমাবেশের আয়োজন করে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের আইইএম ইউনিট চট্টগ্রাম ও পাথফাইন্ডার ইন্টারন্যাশনাল।
পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর চট্টগ্রামের উপপরিচালক ডা. উ খ্যে উইন এবং সহকারী পরিচালক সুব্রত কুমার চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন কাউন্সিলর শাহানুর বেগম, পতেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ওবায়েদুল হক। পাথফাইন্ডার ইন্টারন্যাশনালের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক শেখ নজরুল ইসলাম স্বাগত বক্তব্য দেন। এর আগে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। সমাবেশে কিশোর-কিশোরীরা তাদের বয়ঃসন্ধিকালীন সমস্যা ও নানান বিষয়ে অভিজ্ঞতা নিয়ে কথা বলেন। কিউআইটি চট্টগ্রাম অঞ্চলের আঞ্চলিক কনসালটেন্ট ডা. ছেহেলী নার্গিস কিশোর-কিশোরীদের সাথে প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিষয়ভিত্তিক তথ্য উপস্থাপন করেন।
সমাবেশ সঞ্চালনা করেন ডবলমুরিং জোন পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. খোরশেদ আলম। সমাবেশের আগে অংশগ্রহণকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের শিক্ষার্থীরা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন। তারা নিজেদের নানান চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার কৌশল সম্পর্কে ভিডিও প্রদর্শনীর মাধ্যমে অবহিত হন। বিজ্ঞপ্তি