নতুনভাবে নির্মিত হচ্ছে নাজিরহাট ব্রিজ

6

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি

অবশেষে পুননির্মাণ হতে যাচ্ছে এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবি বৃটিশ আমলে হালদার উপর নির্মিত নাজিরহাট পুরাতন ব্রিজ। কাল বৃহস্পতিবার ওই ব্রিজের নির্মাণের কাজের উদ্বোধন করবেন ফটিকছড়ি সাংসদ খাদিজাতুল আনোয়ার সনি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নাজিরহাট পৌরসভার মেয়র লায়ন একে জাহেদ চৌধুরী ও সেলিম এন্ড ব্রাদার্স’র ঠিকাদার জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল বশর। তারা গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ব্রিজ এলাকা পরিদর্শন এসে বিষয়টি নিশ্চিত করেন । ব্রিজ নির্মাণের উদ্বোধন খবর ছড়িয়ে পড়লে বর্তমান সরকারকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন দুই উপজেলার সাধারণ জনগণসহ সকল শ্রেণির মানুষ।
জানা গেছে, বৃটিশ সরকার ১৯১৯ সালে তৎকালীন ডিস্ট্রিকবোর্ড ফটিকছড়ি-হাটহাজারী উপজেলার সীমান্ত এলাকা নাজিরহাটে এ সেতু নির্মাণ করে। স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পাক হানাদার বাহিনী ডিনামাইড দিয়ে সেতুটির একাংশ ধ্বংস করে দেয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশ সরকার ১৯৭২ সালে সেতুটি মেরামত করে পুনঃ যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল করে। এরপর ২০০৫ সালে ব্রিজটি পুনঃ মেরামতের কাজ হলেও ২০০৮ সালে সওজ কর্তৃপক্ষ ঝুঁকিপূণ সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেয় ব্রিজের কাছে । পুনরায় মেরামত হয়। কিন্তু বিগত পাঁচ বছর আগেই বন্যা ও পাহাড়ি ঢলে পানিতে ফটিকছড়ি-হাটহাজারী সীমান্ত এলাকায় দেবে যাওয়া মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ নাজিরহাট পুরাতন ব্রিজের এক পাশের রেলিং ভেঙ্গে পড়ে গত বছর ১৬মে । রেলিং ভেঙ্গে যাওয়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন নাজিরহাট বাজারের ব্যবসায়িরাসহ দুই উপজেলাবাসী। এমতাবস্থায় ঝুঁকি এড়াতে তখনকার ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.সাব্বির রহমান সানি ও হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.শাহিদুল আলম ব্রিজ পরিদর্শন করে ব্রিজের দু’পাশে আবারো ঝুঁকিপ‚র্ণ সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেয় এবং যান চলাচল বন্ধ করে দেন। লায়ন একে জাহেদ চৌধুরী নাজিরহাট পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর ব্রিজ নির্মাণের জন্য বাজারের ব্যবসায়ি ও স্থানীয়দের সাথে নিয়ে তৎপর হন। পরে মেয়রসহ সকলেই চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এটিএম পেয়ারুল ইসলাম ও ফটিকছড়ির সাবেক সাংসদ সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারীর এর সাথে সৌজন্যে সাক্ষাৎ করেন। পরবর্তীতে গত বছর জুন মাসে ব্রিজ পরিদর্শনে আসেন সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এবিএম আমিন উদ্দিন নুরী। এরেই মধ্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এটিএম পেয়ারুল ইসলাম সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাথে দেখা করে ব্রিজ নির্মাণের কথা বলেন । তাছাড়া ফটিকছড়ি বর্তমান এমপি খাদিজাতুল আনোয়ার সনিও এ ব্রিজ নির্মাণে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেন। পরে পুরতান ব্রিজটি ভেঙে নতুন ব্রিজ নির্মাণের জন্য প্রথম বার টেন্ডার হলেও পুন:রায় রি-টেন্ডার হয়। এতে কাজ পেয়েছেন সেলিম এন্ড ব্রাদার্স। প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার আবুল বশর বলেন, সড়ক জনপদ বিভাগ অধিনে ৪ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ব্যায় এ ব্রিজের নির্মাণ কাজ হবে । ৯৩ মিটার দৈর্ঘ্য, ১০ ফিট প্রস্ত এ ব্রিজ আগামী ৬ মাসের মধ্যে কাজ শেষ হবে বলে তিনি জানান।
নাজিরহাট পৌরসভা মেয়র লায়ন একে জাহেদ চৌধুরী বলেন, আমার নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি ছিল সর্ব প্রথম এ ব্রিজ নির্মাণে কাজ করে যাব। কাজ করেছি বলেই ব্রিজ নির্মাণের কাজ আগামী বৃহস্পতিবার উদ্বোধন হতে যাচ্ছে । সে জন্য তিনি এ ব্রিজ নির্মানে সহযোগিতা করায় ফটিকছড়ি সাবেক এমপি সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী, বর্তমান এমপি খাদিজাতুল আনোয়ার সনি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এবিএম আমিন উদ্দিন নুরীকে ধন্যবাদ জানান।