দীঘিনালায় চাঁদা না দেওয়া গুলি : আহত ৩

43

খাগড়াছড়ির দীঘিনালার মেরুং ইনিয়নের চৌধুরীর পাড়ার জোড়া পানি ছড়া এলাকায় পণ্যবাহি ট্রাকের চালক সহ ৩ জনকে চাঁদা না দেয়ায় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা তাদের উপার হামলা করেছে। অস্ত্রের আাঘাতে ৩ জন গুরুতর আহত হয়েচে। এসময় সন্ত্রাসীরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে। এতে গুরুতর আহত হয় ট্রাক চালক মো. হানিফ। তাকে দীঘিনালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে জেলা সদর হাসপালে প্রেরণ করা হয়েছে। আহত মো. হানিফ (৩৩) উপজেলার মেরুং এলকার সওদাগর পাড়ার সাহেব আলীর পুত্র। এছাড়া আহত হয় মো. হান্নান(৩০) এবং মো. ইব্রাহিম(২৬) তারা একই পাড়ার বাসিন্দা।
এ ঘটনার খবর পেয়ে রোববার দুপুর ১২টায় মেরুং ইউনিয়নের চৌধুরী পাড়া এলাকায় আইন শৃংখলা রক্ষাকারারী বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে। ফেনী-প ১১-০৫৬১ নং গাড়ির ট্রাক চালক মো. সাইফুল(৩০) জানান, চট্রগ্রাম থেকে রাঙামাটির জেলার লংগদু খাদ্যগুদামে চাল নিয়ে যাচ্ছিলেন তারা। হঠাৎ চৌধুরী পাড়া এলাকায় সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে গাড়ি থামিয়ে চাঁদা দাবী করে। তখন গাড়ির হেলপার সন্ত্রাসীদের জানায় সরকারি মাল পরিবহন করছি চাঁদা দিতে পারব না। এ কথা শুনে সন্ত্রাসীরা রাগে ক্ষিপ্ত হয়ে হয়ে হেল্পারকে বন্দুক দিয়ে মারধর শুরু করে। ঘটনাটি ট্রাক চালক মোবাইল ফোনে জিপ গাড়ি চালক হানিফকে জানান। তখন হানিফ ইব্রাহিমকে নিয়ে জিপ গাড়ি যোগে ঘটনা স্থলে পৌঁছে। ইব্রাহিম জানান, তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখেন ১০/১২ জনের সশস্ত্র সন্ত্রসী দল ট্রাকের হেল্পারকে মারধর করছে। এতে বাধা দিলে জিপ গাড়ি চালক হানিফকে লক্ষ করে গুলি ছুড়ে। কিন্তু গুলিটি হানিফের মাথার পাশ দিয়ে চলে যায়, এর পর হানিফকে বন্দুকের বাট দিয়ে মারধর শুরু করে। পরে সন্ত্রাসীরা চলে গেলে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদেরকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। দীঘিনালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক পারবন চাকমা জানান, হানিফের মাথার পিছনে, পিঠে হাতে এবং আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে মাথার আঘাতটি মারাত্মক তাই হানিফকে জেলা সদর হাসপাতলে প্রেরণ করা হয়েছে। দীঘিনালা থানা অফিসার ইনচার্জ উত্তম চন্দ্র দেব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পাওয়ার পর পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনা স্থলে গিয়েছিলাম। এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।