ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের ৮ কর্মকর্তার ৭ বছর জেল

9

নিজস্ব প্রতিবেদক

একযুগ আগে নগরীর বহদ্দারহাটে নির্মাণাধীন ফ্লাইওভার এর গার্ডার ধসে ১৩ জনের প্রাণহানির ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় পৃথক দুই ধারায় ৮ জনকে সাত বছর করে কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। দায়িত্ব পালনে গাফেলতির মাধ্যমে অবহেলাজনিত মৃত্যু ঘটানোর অভিযোগে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের ৮ কর্মকর্তাকে এ সাজা দেওয়া হয়। গতকাল বুধবার চট্টগ্রামের চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভূঁঞা এ রায় দিয়েছেন বলে জানান বেঞ্চ সহকারি ওমর ফুয়াদ।
দন্ডিতরা হলেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের তৎকালীন প্রকল্প ব্যবস্থাপক গিয়াস উদ্দিন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মনজুরুল ইসলাম, প্রকল্প প্রকৌশলী আব্দুল জলিল, আমিনুর রহমান, আব্দুল হাই, মো. মোশাররফ হোসেন রিয়াজ, মান নিয়ন্ত্রণ প্রকৌশলী শাহজান আলী ও রফিকুল ইসলাম। তারা সবাই ওই প্রকল্পে নিযুক্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মীর আক্তার-পারিশার (জেভি) তৎকালীন কর্মকর্তা-কর্মচারী।আদালতের বেঞ্চ সহকারি ওমর ফুয়াদ জানান, দন্ডবিধির ৩৩৪(এ) ধারায় আট আসামির প্রত্যেককে পাঁচ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও তিন লাখ টাকা করে জরিমানা দেওয়ার আদেশ দিয়েছেন আদালত। জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাস কারাদন্ড ভোগ করতে হবে। জরিমানার টাকা আদায় করে ফ্লাইওভার ধসে হতাহতের স্বজনদের ক্ষতিপূরণ হিসেবে দেওয়ার জন্য আদালত নির্দেশনা দিয়েছেন। এছাড়া একই রায়ে আদালত দÐবিধির ৩৩৮ ধারায় প্রত্যেক আসামিকে আরও দুই বছর করে সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন। উভয় সাজা একটির পর আরেকটি কার্যকর হবে বলে আদালত রায়ে উল্লেখ করেছেন।
আদালত রায়ে আরও উল্লেখ করেন, আসামিরা মাঠপর্যায়ে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি বা কর্মকর্তা হিসেবে নির্মাণকাজ তদারকির দায়িত্বে ছিলেন। তারা যেমন হতাহতের ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না এবং তাদের মাধ্যমে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের দায়ের বিষয়টিও প্রতীয়মান হয়।
দুর্ঘটনার পর ফ্লাইওভার নির্মাণকারী মূল কর্তৃপক্ষ সিডিএ একজন নিহতের পরিবারকে ডেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেন বলে তদন্তে এসেছে। এর মধ্য দিয়ে সিডিএ দুর্ঘটনায় ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের দায়ের বিষয়টি স্বীকার করে নেয় বলে আদালত রায়ে উল্লেখ করেছেন।
রায় ঘোষণার সময় জামিনে থাকা আট আসামির প্রত্যেকে আদালতে হাজির ছিলেন। পরে আদালতের নির্দেশে সাজামূলে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়।
২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় বহদ্দারহাট এলাকায় নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের তিনটি গার্ডার ভেঙে ১৩ জন নিহত হন। আহত হন অর্ধশতাধিক। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) ফ্লাইওভার নির্মাণের কাজ করছিল। তখন সিডিএ’র চেয়ারম্যান ছিলেন বর্তমান সংসদ সদস্য আবদুচ ছালাম। এ ঘটনার পর ২৬ নভেম্বর চান্দগাঁও থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। মামলা করেছিলেন চান্দগাঁও থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ। মামলায় চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) তিন কর্মকর্তাসহ মোট ২৫ জনকে আসামি করা হয়েছিল। এরা হলেন প্রকল্প পরিচালক সিডিএ’র তৎকালীন নির্বাহী প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান, সহকারি প্রকৌশলী তানজিব হোসেন ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী সালাহ উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী। এছাড়া ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মীর আক্তার অ্যান্ড পারিশা ট্রেড সিস্টেমসের ১০ জন এবং বেসরকারি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এসএআরএম অ্যাসোসিয়েটস অ্যান্ড ডিপিএমের ১২ জনকে আসামি করা হয়। তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ২৪ অক্টোবর চান্দগাঁও থানার তৎকালীন পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম শহীদুল ইসলাম আটজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে সিডিএ’র তিন কর্মকর্তা, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ তিনজন এবং পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ মতিনসহ ১২ জনের নাম বাদ দেওয়া হয়।
২০১৪ সালের ১৮ জুন আটজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন তৎকালীন চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ এস এম মজিবুর রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে মোট ২৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ২২ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়। সাতজন আসামি সাফাই সাক্ষ্য দেন। সাত কর্মদিবস পর গত ২৫ জুন রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক শেষ হয়। এরপর রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ করেন আদালত। ২০১০ সালে এম এ মান্নান (বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার) ফ্লাইওভারের নির্মাণ কাজ শুরু করেছিল চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। নির্মাণ শেষে ২০১৭ সালে সেটি পূর্ণাঙ্গভাবে চালু করা হয়।