চিটাগাং চেম্বার নেতৃবৃন্দের সাথে ইন্দোনেশিয়ান রাষ্ট্রদূতের সভা

7

বাংলাদেশে নিযুক্ত ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত হেরু হারতান্তো সুবোলো ১৯ মে সকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র পরিচালকবৃন্দের সাথে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এ সময় চেম্বার সভাপতি ওমর হাজ্জাজ, পরিচালকবৃন্দ এ. কে. এম. আক্তার হোসেন, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (আলমগীর), অঞ্জন শেখর দাশ, মাহফুজুল হক শাহ, মাহবুবুল হক মিয়া, মোহাম্মদ মনির উদ্দিন ও আখতার উদ্দিন মাহমুদ বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যদের মধ্যে দূতাবাসের এ্যাটাচে রব্বি ফিরলি হারখা ও ইকোনমিক এ্যাফেয়ার্স সপ্তো রুদিয়ান্তো-সহ চেম্বার কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। চট্টগ্রামে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড সাধিত হয়েছে উল্লেখ করে ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত হেরু হারতান্তো সুবোলো বলেন-বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি চোখে পড়ার মত। ইন্দোনেশিয়ার সাথে বাংলাদেশের মধ্যে প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য সম্পাদিত হলেও দু’দেশের মধ্যে বিশাল বাণিজ্য ঘাটতি দূরীকরণে বাংলাদেশ থেকে ফার্মাসিউটিক্যালস, পাটজাত পণ্য এবং রিসাইকেল ইয়ার্ন রপ্তানির সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেন। একই সাথে চেম্বার নেতৃবৃন্দের অনুরোধের প্রেক্ষিতে ইন্দোনেশিয়া-বাংলাদেশ অন এরাইবেল ভিসা চালুকরণের উদ্দেশ্যে সরকারের সাথে আলোচনা করবেন বলে জানান। চট্টগ্রামের বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি ভৌগোলিক সুবিধা তুলে ধরে চেম্বার সভাপতি ওমর হাজ্জাজ বলেন- খাদ্য উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে অন্যতম বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশের মোট খাদ্য উৎপাদনের এক-তৃতীয়াংশ বা ৩বিলিয়ন ডলার সংরক্ষণ কিংবা প্রক্রিয়াজাতকরণের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আবার বিশ্বব্যাপী হালাল ফুড এবং খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণে সুনাম রয়েছে ইন্দোনেশিয়ার। পাশাপাশি উভয়দেশের ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের মাঝে যোগাযোগ বৃদ্ধিসহ যাতায়াত ব্যবস্থাকে আরো সহজীকরণের লক্ষ্যে ইন্দোনেশিয়া অন এ্যারাইভাল ভিসা পুনরায় চালু করণের উপর গুরুত্বারোপ করে রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা কামনা করেন। বিজ্ঞপ্তি