এক টাকায় মাত্র দুইটি কাঁচামরিচ!

45

হাটহাজারী পৌরসভার মেডিকেল গেট এলাকার একটি ভাড়া বাসার বাসিন্দা রিকশাচালক মো. নাঈম উদ্দিনের স্ত্রী সুফিয়া আক্তার। গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় একটি কাঁচাবাজার থেকে শাকসবজি কেনার পর একটা ৫ টাকার একটি নোট বাড়িয়ে দেন কাঁচামরিচ বিক্রেতা মো. এমরানের দিকে। বিক্রেতা এমরান ৫ টাকার কাঁচামরিচ দেওয়া সম্ভব নয় বলে ফিরিয়ে দেন। এর কারণ জানতে চাইলে কাঁচামরিচ বিক্রেতা এমরান জানান প্রতিকেজি কাঁচামরিচের মূল্য ২৫০ টাকা।
এসময় সুফিয়া ১২ টাকার বিনিময়ে ৫০ গ্রাম কাঁচামরিচ কিনেন। পরবর্তীতে দেখা গেল ওই ৫০ গ্রাম ওজনের মরিচের সংখ্যা হল ২৫টি। তারমধ্যে একটি মরিচ ছিল পঁচা। ফলশ্রুতিতে দেখা দুইটি মরিচের দাম পড়েছে এক টাকা।
বাজার ঘুরে জানা যায়, প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁচামরিচের দাম ২৫ টাকা হওয়ায় ক্রেতারা ৫০ গ্রাম থেকে ১০০ গ্রাম কাঁচামরিচ কিনছেন। এর চেয়ে বেশি মরিচ কেউ নিচ্ছেন না। সব রকম সবুজ সবজির দামেই এখন আগুন। বাজারে ৪০ থেকে ৬০ টাকার নিচে আলু এবং কচুর ছড়া ছাড়া আর কোনো সবজিই মিলছে না। দুদিন আগে ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হওয়া মরিচের দাম এক লাফে প্রায় চার গুণ বেড়ে এখন বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকায়।
অন্যসময় যারা আধা কেজি মরিচ কিনতেন বর্তমানে তারা কিনছেন সর্বোচ্চ ৫০ থেকে ১০০ গ্রাম। খরচ কমাতে গিয়ে কাঁচামরিচের পরিবর্তে গুঁড়ো মরিচ ব্যবহার করছেন মানুষ।
হাটহাজারী বাজারে কাঁচাবাজার করতে আসা স্কুল শিক্ষিকা নুসরাত জাহান বলেন, এত বেশি দাম দিয়ে কাঁচা মরিচ কখন কিনছি মনে করতে পারছি না। আমার বাসায় প্রতি দুদিন অন্তর এক পোয়া কাঁচা মরিচের প্রয়োজন হলেও খরচ কমাতে এখন সে জায়গায় ৫০-১০০ গ্রাম মরিচ দিয়ে কোনোমতে কাজ চালিয়ে নিচ্ছি। বাচ্চারা খেতে না চাইলেও বেশির ভাগ রান্নাই এখন গুঁড়ো মরিচ দিয়েই করতে হচ্ছে।