আগামীকাল ১লা বৈশাখ চট্টগ্রাম ডিসি হিল পার্কে বাংলা বর্ষবরণ

105

পূর্বদেশ অনলাইন
সম্মিলিত পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন পরিষদ প্রতি বছরের মত এবারও চট্টগ্রাম ডিসি হিল পার্কে বাংলা বর্ষবরণ উপলক্ষে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। তিন দশকের বেশি সময় ধরে ডিসি হিলে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান আয়োজন করে আসছে ‘সম্মিলিত পহেলা বৈশাখ উদযাপন পরিষদ।’ ডিসি হিলে সকাল সাড়ে ৬টায় জাতীয় সংগীত ও স্বনামধন্য নৃত্য সংগঠন কায়া আশ্রমের শিল্পীদের ধ্রুপদ নৃত্যের মধ্য দিয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেওয়ার আয়োজন শুরু হবে। আগামীকাল ১লা বৈশাখ (১৪ এপ্রিল) বাঙালির এই উৎসব পালনে ইতমধ্যে পরিষদের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়ে। উল্লেখ্য বিগত ১৯৭৮ সালে সামরিক শাসনের নির্মমতাকে উপেক্ষা করে চট্টগ্রামের ডিসি হিলে সর্বস্তরের সংস্কৃতিকর্মীরা বাংলা নববর্ষকে স্বাগত জানানোর জন্য সমবেত হয়েছিল। ডিসি হিলের এ উৎসব এখন চট্টগ্রাম তথা বাংলাদেশের প্রধানতম একটি আয়োজন। ইতোমধ্যে এ আয়োজন ৪৬ বছরে পর্দাপন করেছে। এ উপলক্ষে গত ১লা এপ্রিল পরিষদের আহবায়ক অলক ঘোষের সভাপতিত্বে এক কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় দিনব্যাপী বাঙালির এই প্রধান উৎসবকে যথা-সম্ভব বর্ণাঢ্য ও ব্যাপক করার নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করা হয়। কর্মীসভায় উপস্থিত ছিলেন সুচরিত দাশ খোকন, আবদুল হাদী, মোহাম্মদ আলী টিটু, শান্তনু দাশ, মিখাইল মোহাম্মদ রফিক, বাপ্পা চৌধুরী, রিপন বড়ুয়া সহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন নাট্য ও সংস্কৃতি কর্মীবৃন্দ। প্রতি বছরের মত এবারও অনুষ্ঠানমালায় থাকবে সংগীত, নৃত্য, আবৃত্তি পরিবেশনা সহ অন্যান্য অনুষ্ঠানমালা। সভায় নববর্ষের দিন ভোর সাড়ে ছয়টা থেকে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা হয়। ‘পহেলা বৈশাখ বাঙালীর উৎসব, সবার যোগে জয়যুক্ত হোক’ এই শিরোনামে বিগত ৪৫ বছরের মত ভোরের আলোয় সংগীতে-কবিতায়-নৃত্যে নববর্ষকে আবাহন জানিয়ে সাংস্কৃতিক সংগঠন সমুহের পরিবেশনাঃ সংগীতে:- সংগীত ভবন, ছন্দানন্দ সাংস্কৃতিক পরিষদ, সুর-সাধনা সংগীতালয়, জয়ন্তী সংগীত বিদ্যাপীঠ, রাগেশ্রী, সৃজামি সাংস্কৃতিক অঙ্গন, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী চট্টগ্রাম জেলা, গীতধ্বনি সংগীত অঙ্গন, শান্তঞ্জলী সংগীত নিকেতন, শাস্ত্রীয় সংগীত নিকেতন, ফতেয়াবাদ সংগীত নিকেতন, মিতালী সংগীত বিদ্যালয়, খেলাঘর মহানগর, ইমন কল্যান সংগীত বিদ্যাপীঠ, আর কে মিউজিক, শহীদ মিলন সংগীত বিদ্যালয়, বংশী শিল্পকলা একাডেমি, কুসুম ললিতকলা একাডেমি, অনন্যা সংগীত নিকেতন ও সুন্দরম শিল্পী গোষ্ঠি। নৃত্যে:- কায়া আশ্রম, নটরাজ নৃত্যাঙ্গন একাডেমি, স্কুল অব ওরিয়েন্টাল ডান্স, ওড়িশী অ্যান্ড টেগোর ডান্স মুভমেন্ট সেন্টার, ঘুঙুর নৃত্যকলা কেন্দ্র, সঞ্চারী নৃত্যকলা একাডেমি, সুরাঙ্গন বিদ্যাপীঠ, দি স্কুল অব ক্লাসিক এন্ড ফোক ডান্স, নৃত্যানন্দন, নৃত্য নিকেতন, অঙ্গনা নৃত্যকলা একাডেমি, ধ্রুপদ নৃত্য নিকেতন, সৃষ্টি কালচারাল ইনস্টিটিউট, নৃত্যরূপ একাডেমি, কৃত্তিকা নৃত্যালয় ও নিপ্পন একাডেমি। আবৃত্তিতে:- বোধন আবৃত্তি পরিষদ, উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জ, নরেন আবৃত্তি একাডেমি, বোধন আবৃত্তি পরিষদ, শৈশব, তারুণ্যের উচ্ছাস, স্বরনন্দন প্রমিত বাংলা চর্চা কেন্দ্র, প্রমা আবৃত্তি সংগঠন ও উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জ। যাদু প্রদর্শনী: যাদুকর রাজিব বসাক।